ঝাউগাছ ও এক নৌকোর গল্প



১।

আমরা আর সারারাত গল্প করি না এখন,
এখন আমাদের মধ্যে অনেক শীতল ধোঁয়া
ভীষন শীতের কুয়াশায় আচ্ছন্ন সবটা...
তারপর গল্পেরা শেষ হয় ধীরে ধীরে,
এখন আর গান শোনানো হয় না,
আমার কবিতারা তোর অলিন্দে সুর তোলেনা আর।।


২।

শুনেছি জ্যোৎস্নারাতে
একটি গোপন নৌকো ঘাটে ঘাটে ঘোরে,
বহুকাল এই গ্রামে থেকে আমি দেখিনি
শুধু শুধু নদীর নামে রটিয়েছি অপবাদ;
আজ মনে হয় সব ঘাটেই রাতে রাতে
মিশে যায় জল
নদী আর নৌকোতে চলে অভিমান।


৩।

ঘুমন্ত শরীর থেকে আরো এক শরীর জেগে
উঠে,
পাঁচ ডিগ্রি কোন মেপে গাছতন্তুর
সংকোচন -প্রসারনের ছায়া খোঁজে;
স্তব্ধতারা জন্মলগ্নের রঙ বদলায়,
নিজস্ব গন্ধ থেকে দূরে সরে গিয়ে
চাঁদরাত অসম্পূর্ণ বৃত্তের গায়ে লতানো সোনাঝুরি
আমি স্বপ্নকে ছুঁতে ছুঁতে চলে যাই প্রলম্বিত
রশ্মি রাখা সেইসব পরচর্চামগ্ন
ফিসফিসে ঝাউগাছের কাছে।


৪।

পাখি হবার স্বাধ ছিলো
সমূদ্র কাছে ডেকে বললো -
প্রেম এক জলজ উদ্ভিদ ।
সেই থেকে মেঘের আশ্রয়ে বেড়ে উঠেছি,
মেঘের পালক সন্তান আমি ,
বুকের বাম পাশে
হাত রেখে বলে দিতে পারি
সূর্যের আয়ুষ্কাল ।




Powered by Blogger.