পরিযায়ী বৃষ্টিরা

তোর জন্য যেসব চিঠি,লিখতে গিয়ে সাদা পাতায়
থমকে গেছি অনেকদিন, সেসব পাতার অনেক ঋণ
তোর কাছে আজ রইল জমা... 
চিঠির শেষে কী আর দিবি ?
দু এক টুকরো আদর পাঠাস..
সঙ্গে নাহয়...একটু ক্ষমা
করতে পারিস ?

মাঝে মাঝে বিষণ্ণ নদীর ধারে পাহারায় বসে রাতচরা পাখি,

ঘুমন্ত মেঘেদের দিকে আক্ষেপ ছুঁড়ে দিতে দিতে,

রেখে যায়, এক টুকরো বিশ্বাস।

তখনও জল থেকে তুলে নেওয়া বাকি,

গোলাপী পদ্ম বা নদীর ছাপ।

গ্রীষ্মের ঝিমলাগা দুপুর আঁচল পেতে সোঁদা গন্ধ বিছিয়ে নিতে নিতে,

মনে মনে ভাবে, এখনও শরৎ অনেক দূর।

মন খারাপেরা তবুও ফেরেনা বাড়ি।

একটুকরো আকাশ শুধু কার্নিশে এসে দাঁড়ায়,

কাশ ফুল হতে চেয়ে।

অজস্র পাখির মতন পরিযায়ী হয়ে বৃষ্টি নামে,

কার জানি বুক আর উঠোন জুড়ে।

কখনও অনেক আকাশ যদি পাই, তোকে আনবো,

কোল পেতে, ঠিক।

তারপর, রাতের বাতাস জুড়ে মায়ের ওমের মতন,

ফুটে উঠবে ভোরের গন্ধরাজ।
Powered by Blogger.