9 April 2017

মধ্যরাতের স্বপ্নেরা বেঁচে থাকুক ...!


যে ছেলেটা রোজ বিকেলে একতাড়া গোলাপ ফুল নিয়ে মাথা নিচু করে পার্কের ওই শেষ বেঞ্চিটাতে বসে থাকত চুপচাপ, আনমনে চিন্তা করত, কিভাবে মেয়েটাকে বলবে ওর ভালোবাসার কথা, কোন উপায় খুঁজে না পেয়ে সদ্য কেনা তাজা গোলাপগুলোকে আলগোছে রেখে যেত বেঞ্চির উপরে, পার্কের ওই শেষ বেঞ্চিটাতে এখন আর কেউ বসে না,কেউ না!

যে মেয়েটা বৃষ্টির শব্দ শুনলেই নিজেকে আর দমিয়ে রাখতে পারতো না রুমের ভেতর, দৌড়ে ছাদে গিয়ে বৃষ্টি ভেজা আকাশের দিকে তাকিয়ে উদ্দাম বৃষ্টির ঝাপটায় ভিজিয়ে নিতো চুল! বৃষ্টির শব্দ শুনলে সেই মেয়েটার চোখে আজ চিকচিক করে ওঠা অশ্রু জমে ওঠে বেদনায়, বর্ষাজলের আওয়াজে সেই নিঃশব্দ কান্নার আওয়াজ হারিয়ে যায় ওই দূরে!

ওইযে ফাঁকা রাস্তাটা দেখতে পাচ্ছেন? রোজ মধ্যরাতে নীল শার্ট পড়া এক যুবক সেখানে বসে হাসিমুখে কার সাথে যেন কথা বলতো! আজকাল যুবকটিকে আজ হাসতে দেখা যায় না। হয়তো কোনদিন দেখবেন, অযত্নে ফেলে রাখা শত ভাজ পড়া কোন শার্ট গায়ে দিয়ে রাস্তার পাশে বসে সিগারেটের ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন করে রেখেছে চারপাশ, নির্লিপ্ত চোখে, স্মৃতিগুলো ভুলে থাকার অসম্ভব চেষ্টায়!

এই নগরীর এই মাঝরাতে এমন কতশত স্বপ্ন হারিয়ে যায় সবার অগোচরে, কেউ তো জানে না তা! হয়তো প্রিয়জনের সাথে ফিসফিস করে বানানো ছোট ছোট স্বপ্নগুলো ঝাপসা হয়ে ওঠে চোখের জলে,বিরহের তীব্র বেদনায় বুক মুচড়ে ওঠা ব্যাথার ছলে, দুজনের কেউই জানতে পারে না কখনো। তাইতো কেউ খুব মাঝরাতে, ঘুটঘুটে অন্ধকারে বসে আকাশের দিকে তাকিয়ে রয়, প্রিয়জনের প্রিয় মুখটির সন্ধানে, ওই বুঝি ফিরো এলো আবার!

কেউবা আশায় বুক বাধে, কেউবা জীর্ণ হয়ে যাওয়া স্বপ্নগুলো মুছে দিতে চায় অকাতরে, টুপটুপ শব্দ করে ফেলা চোখের জলের মধ্য দিয়ে, ভুলে থাকার অবিরাম চেষ্টায়!

মধ্যরাতের স্বপ্নগুলো ভালো থাকুক! বেঁচে উঠুক নতুন করে, আবার!

ঘাসফুলেদের সাথে

তুমি সারাক্ষন খুঁজে গেছো দুপুর সন্ধ্যে বেলায়, সময় দাওনি ঘাস ফুলেদের। লিলুয়া বাতাস হয়ে ছুয়ে গেছো দূর আরো দূর বেপাড়ায়… ফিরে গেছে সে নদী...