Hachi: A Dog's Tale (2009) "“একটি বিষাদময় ভালোবাসার গল্প”

জাপানের একটি সত্য ঘটনা অবলম্বনে একজন প্রফেসর এবং একটি ফেইথফুল কুকুরের বিষাদময় ভালোবাসার গল্পের নাম ” হাচি- অ্যা ডগস ট্যাল”।



◆প্রথমেই মুভিটা সম্পর্কে নিজের কিছু অনুভূতির কথা বলি। আইএমডিবি এর টপ ২৫০ লিস্টে মুভিটির নাম এবং রেটিং ৮.২ দেখে মুভিটি দেখার আগ্রহ জাগলো। ভাবলাম কুকুর আর মানুষের কোন এক বন্ধন এর গল্প হবে,কুকুর লালন-পালন করবে ,মালিক এর কথা শুনবে ইত্যাদি ইত্যাদি।
কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন।
মুভিটি দেখার পর থেকে মনটা কেমন যেন ভারী হয়ে ছিল। এক দু ফোটা চোখের জলও পরেছে।

✦প্লট সামারিঃ
প্রফেসর পার্কার উইলসন প্রতিদিন ট্রেনে যাতায়ত করেন। একদিন ট্রেন ষ্টেশনে হারিয়ে যাওয়া একটি কুকুর দেখতে পান। প্রফেসর কুকুরটির প্রকৃত মালিক কে খোঁজার চেষ্টা করেন কিন্তু ব্যর্থ হোন। প্রফেসরের কুকুরটিকে পোষার ইচ্ছে থাকলেও তার স্ত্রীর দ্বিমত এর কারনে কাউকে পোষার দায়িত্ব দেয়ার চিন্তা ভাবনা করে বাট কিছুদিন পরে তার স্ত্রী বুঝতে পারেন যে তার স্বামী কুকুরটিকে খুব পছন্দ করেছেন। তারপর থেকে প্রফেসর কুকুরটিকে নিজের কাছে রেখে দেন এবং তার এক বন্ধু জাপানি প্রফেসরের মাধ্যমে নাম দেয় ” হাচি”।
বাকিটা মুভিতেই দেখে নিবেন, গ্যারান্টি দিচ্ছি অনেক অনেক ভালো লাগবে মুভিটি।
মুভির ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক এর প্রশংসা না করলে এক প্রকার অন্যায় হয়ে যাবে, অসাধারণ ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ছিলো পুরো মুভিতে।


✦কিছু ট্রিভিয়াঃ
▧১৯২৪ সালে জাপানের প্রফেসর Hidesaburō Ueno এর সত্য ঘটনা অবলম্বনে মুভিটি করা।

▧১৯৮৭ সালের জাপানি ফিল্ম “The Tale of Hachiko” এর অফিসিয়ালি রিমেক “Hachi: A Dog’s Tale”

▧প্রফেসর আর কুকুরের ঘটনাটি এতোই জনপ্রিয় যে অত্র ট্রেন স্টেশন এর সামনে “হাচি” কুকুরটির ব্রোঞ্জের মূর্তি রয়েছে এবং প্রতি বছর অনেক দর্শনার্থী সেটা দেখতে যান।

▧জাপানে হাচি “faithful dog” হিসেবে পরিচিত।
Post a Comment

মহাজাগতিক ইতিহাসে আমাদের এপিটাফের গল্প

কোন সন্ধ্যে সন্ধ্যে রাতে রাস্তারা বুঝি অদ্ভুত প্রনয়ে খুন হয়! খুন হয় কতশত খেয়ালের অগোচরে আটকে পড়া দীর্ঘ নি:শ্বাসেরা! ইশ! আমাদের খেয়ালগুলো য...