অজানা খেয়ায় ভেসে

চলতে চলতে জীবনের অনেকটা পথ হেঁটে
অনেক রঙিন ফাগুন হয়েছে বিলীন,
সবুজ বনানী, কাশবন, নদী, বালুচর পেরিয়ে
ফসলের মাঠ, হিজল, আমলকী, বৈচির বন পিছনে
ফেলে-
শিমুল,পারুল,চাঁপা, জুই - কত নাম না জানা ফুল
পথের দুপাশে রেখে
জীবনের এক অবসন্ন বাকে এসে দাঁড়িয়েছি আজ।
কোনো কোনো বিষন্ন প্রহর মনের বেলাভূমি
ভিজিয়ে দেয়।
যে জীবন ছিল ঝর্নার মত দুর্বার, চঞ্চল, গতিময়
খরস্রোতা নদীর মতো স্রোতোস্বিনি,
কখনো বা পৌষের শীর্ণ নদীর মতো গতিহীন-
আবার কখনো দীঘির জলের মতো নিথর।
অবসরে কোনো কোনো দুর্বল মূহুর্তে নিজের
হৃদয়টাকে খুলে দেখি.......... এক বুক শূন্যতা।
ভালোবাসার শত রঙে সাজানো মন্দির-
আজও ফাঁকা,
বিরান মাঠের খোলা হাওয়ায়।
প্রথম যৌবনে চাঁদকে দেখে মনে হয়েছিল-
আমার হৃদয় বুঝি পেয়ে গেছি,
কিন্তু তাকে আবাহনের আগেই দেখি
রাতের আঁধারে সে হারিয়ে গেছে।
এর পর দেখা নদীর সাথে-
মাত্র কদিনের আলাপ,
অথচ মনে হয় অনেক যুগ আগের জানাশোনা।
বিদায়ের আগে ঠিকানা চেয়ে বললো-
চিঠি লিখলে উওর পাবো তো ?
এত বছর প্রতীক্ষায় আছি- কোনো চিঠি আজও
আসেনি।
আকাশ আমার ভালো বন্ধু
সে একদিন বলেছিল "তোর মত ছেলে সব মেয়েই
চাইবে" ,
হয়তো সঠিক মেয়েটি এখানো সামনে আসেনি ,
কিংবা খুব কাছেই আছে
এখনো পারিসনি চিনতে।
সত্যি সে আমার খুব ভালো বন্ধু ছিল,
সময়ের স্রোতে একে একে সব হারিয়ে গলেও
সে হারায়নি কিংবা ভুলে যায়নি কখনো।
এখন জীবনের তাগিদে ঠিকানা বদলেছে।
একদিন বলেছিল - ঠিকানা বদলেছিস জানাসনি,
চেষ্টা করলেও নিজেকে লুকাতে পারবি না,
কিছুতেই না,
তোর সাথে ছায়ার মতো লেগে আছি
যেযেখানেই যাস-যত দুরেই থাকিস........
Powered by Blogger.